Thursday, 1 October 2020

বাবরি ধ্বংসের সময় "মন্ত্র উচ্চারণ " করছিলাম বলে বিতর্কে জড়ালেন স্বাদ্ধি

ওয়েব ডেস্ক ১লা অক্টোবর ২০২০ :  বাবরি মসজিদ ধ্বং’স মামলার রায়ে ৩২ জন অভিযুক্তকে বে’কসু’র খা’লাস করেছেন  লখনউয়ের সিবিআই আদালতের বিচারক। আগে থেকে পরিক’ল্পনা করে ওই মসজিদ ভা’ঙা হয়নি বলে উল্লেখ করেছেন। সেই একই কথা বললেন এই মামলায় বে’ক’সুর খা’লাস পাওয়া হিন্দুত্ববা’দী আ’ন্দো’লনের ফা’য়ারব্র্যা’ন্ড নেত্রী সাধ্বী ঋতম্ভরা।

বাবরি মসজিদ ধ্বং’সের পিছনে তাদের কোনও হাত নেই বলে উল্লেখ করে জানালেন, তারা কোনও ষ’ড়য’ন্ত্র করেননি। শুধুমাত্র মন্ত্র উচ্চারণ করছিলেন। বুধবার সকালে সিবিআই আদালতে হাজিরা দেওয়ার জন্য মঙ্গলবার রাতে উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউতে পৌঁছে গিয়েছিলেন সাধ্বী ঋতম্ভরা। পরে রাতেই সেখানকার ভিআইপি গেস্টহাউসে সাংবাদিকদের মু’খোমু’খি হন।

সেসময় বাবরি মামলার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ”বাবরির পরিকাঠামোর ভা’ঙার বিষয়ে কোনও চ’ক্রা’ন্ত করিনি আমরা। শুধুমাত্র মন্ত্র উচ্চারণ করছিলাম, ষ’ড়য’ন্ত্র নয়। এখন অযোধ্যায় রাম মন্দির তৈরি করার ল’ক্ষ্যপূরণ হয়েছে। তাই এর জন্য কোনও মূল্য দিতে হলেও অসুবিধা নেই। আদালত যা সিদ্ধান্ত দেবে তা মাথা পেতে নেব।”

রাম মন্দির তৈরির জন্য ৫০০ বছর ধ’রে প্রচুর মানুষ অনেক ব’লিদান দিয়েছে বলে উল্লেখ করে ঋতম্ভরা আরও বলেন, ”১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর কোনও ষ’ড়য’ন্ত্র করা হয়নি। ওটা একটা দু’র্ঘ’টনা ছিল। তাই অ’পরা’ধমূলক ষ’ড়য’ন্ত্রের অ’ভিযো’গ সম্পূর্ণ ভি’ত্তিহী’ন। আমরা কোনওদিনই অন্যের সম্পত্তি দ’খ’ল করতে চাই না। শুধুমাত্র, আমাদের বিশ্বাস ও রামলালার জন্য ল’ড়া’ই করেছিলাম।

তিনি বলেন, ”আসলে ৫০০ বছর ধ’রে রাম মন্দির তৈরির জন্য প্রচুর মানুষ অনেক ব’লিদান দিয়েছেন। আমাদের সৌভাগ্য যে এই বিবাদের মী’মাং’সা দেখে যেতে পারলাম। এখন শ্রী রাম জন্মভূমিতে তৈরি হওয়া সুবিশাল মন্দিরে বিরাজমান হবেন রামলালা।” মঙ্গলবার রাতে কোনও ষ’ড়য’ন্ত্র করেননি বলে দাবি করলেও বুধবার দুপুরে সিবিআইয়ের আদালত ৩২ জন অ’ভিযু্ক্তকে বে’কসু’র খা’লাস করতেই ব’দলে যায় সাধ্বী ঋতম্ভরার গলার সুর। সাফ জানিয়ে দেন, ”রাম মন্দির ইস্যু মিটল, এবার কাশী-মথুরাতেও আমরা আমাদের নৈতিক অধিকারের জন্য ল’ড়াই করব।”


No comments:

Post a comment

loading...