Saturday, 3 October 2020

মমতা পথে নামছেন আজ, ডেরেককে ধর্ষিতার বাড়ির দেড় কিমি আগে আটকাল যোগীর পুলিশ

ওয়েব ডেস্ক ৩রা  অক্টোবর ২০২০ : উত্তরপ্রদেশের হাথরাসে গণধর্ষণ এবং মৃত্যুর ঘটনায় বিভিন্ন রাজ্যের বিরোধী দল ক্ষেপে উঠেছে। শুধু বিরোধী বলেই নয়, সাধারণ-সচেতন নাগরিকরা প্রতিবাদ জানাচ্ছে ব্যাপকভাবে। 

কংগ্রেসের পর আজ শুক্রবার তৃণমূলের প্রতিনিধি দল হাথরাসে যায়। সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েনসহ কাকলি ঘোষদস্তিদার প্রমুখ ছিলেন দলে। তাঁদের ঢুকতে দেয়া হয়নি। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ তাঁদের আটকায়, টেনে মাটিতে ফেলা হয় ডেরেককে! ক্ষেপে ওঠেন কাকলি! এবার পথে নামছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিবাদে যোগ দেবেন শোনা যাচ্ছে তৃণমূলের সব নেতা-মন্ত্রীরাই। মূলত হাথরাসের মৃতার ন্যায় বিচারের দাবি এবং উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের প্রশাসনের বিরুদ্ধে শনিবার, ৩ অক্টোবর পথে নামছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। সূত্রে জানা গেছে, আগামিকাল বিকেল ৪টে থেকে শুরু হবে প্রতিবাদি মিছিল। বিড়লা প্ল্যানেটরিয়াম থেকে গান্ধী মূর্তি পর্যন্ত হবে প্রতিবাদ মিছিল।উল্লেখ্য, শুক্রবার হাথরাসে নির্যাতিতার বাড়িতে পৌঁছনোর চেষ্টা করেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন, কাকলি ঘোষদস্তিদাররা। বৃহস্পতিবার রাহুলদের আটকানোর মতোই ফের পুলিশ তাঁদের আটকায়। নির্যাতিতার বাড়ির মাত্র দেড় কিলোমিটার আগেই অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদরা।এদিন দলের নেতৃত্বে ছিলেন তৃণমূল দলনেতা ডেরেক ও ব্রায়েন। সঙ্গে ছিলেন প্রতিমা মণ্ডল, প্রাক্তন সাংসদ মমতা ঠাকুরও।

এদিকে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ হাথরাসের ঘটনা প্রসঙ্গে বাংলার তুলনা টেনে মোক্ষম ঘা দেন মুখ্যমন্ত্রীকে। বলেন, ‘যারা রাজনীতি করছেন তারা একটু দেখুন বাংলায় কী হচ্ছে।’আরও বলেন, ‘সারা দুনিয়ার জঙ্গি এখান থেকে ধরা পড়ছে। যেখানে সেখানে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়। বাদুড়িয়া, বসিরহাট, রানিগঞ্জ আসানসোল, ধূলাগড়ে কেন দাঙ্গা হয়। এরপরেও এখানে মনে হয় শান্তি রয়েছে? পশ্চিমবঙ্গে শ্মশানের শান্তি বিরাজ করছে। পাড়ায় পাড়ায় খুন ধর্ষণ হচ্ছে।’


উল্লেখ্য, গত ১৪ সেপ্টেম্বর মানবসমাজকে লজ্জানত করা ঘটনাটি সংঘটিত হয়। একটি পরিত্যক্ত জায়গায় নিয়ে গিয়ে পাশবিক নির্যাতন চালানো হয় দলিত তরুণী মনীষা বাল্মিকির উপর।শরীরের এক এক জায়গায় গভীর ক্ষত পাওয়া গেছে। জিভ ছিল কাটা। তরুণীর একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। সেখানে সে ধীরে ধীরে কথা বলে যাচ্ছে। বলছে তাঁর উপর ভয়ানক অত্যাচার চালানো হয়!  টানা ১৫ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে মঙ্গলবার দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে মৃত্যু হয় ১৯ বছরের তরুণীর।এরপর যা ঘটেছে, তা দেখে দেশ বাকরুদ্ধ। পুলিশ জোর করে রাতের অন্ধকারে তুলে নিয়ে গিয়ে পুড়িয়ে দেয় দেহ! ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে চারজনকে। পাষণ্ডরা কারাগারে।


তবে আর যাই হোক, বিরোধী কিন্তু নির্বাচনের আগে আগে ঘটনাগুলোকেই অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার সুযোগ মোটেও হাতছাড়া করছে না! 

No comments:

Post a comment

loading...